১২ই আগস্ট, ২০২০ ইং, বুধবার

সমস্যা যখন ঘুমের মধ্যে কথা বলা-

আপডেট: জুলাই ৩১, ২০১৯

| মেহেদী হাসান রাসেল

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

নাক ডাকার মতো ঘুমের মধ্যে কথা বলা বা স্লিপি টকিং একটি সমস্যা। যিনি কথা বলছেন তার হয়তো কোনো সমস্যা না হলেও তার পাশে থাকা সঙ্গী কিংবা রুমমেটের ঘুমের ক্ষেত্রে সমস্যা হয়। অনেক সময় মনে হতে পারে তিনি আপনাকে উদ্দেশ্য করে কিছু বলছেন। কিন্তু পরে দেখা যায়, তিনি নিজে নিজেই কথা বলছেন। চলুন জেনে নেয়া যাক  ঘুমের মধ্যে কথা বলা বা স্লিপ টকিং কি, কেন হয় ও এর প্রতিকার কি?

স্লিপ টকিং কী:ঘুমের মধ্যে অসচেতন হয়ে নিজের সাথে কথা বলাই হচ্ছে, স্লিপ টকিং। এটি এক ধরণের প্যারাসমনিয়া বা অস্বাভাবিক আচরণ যা ঘুমের মধ্যে হয়। এই সময়ে ঐ ব্যক্তি একা একা বা কাল্পনিক কোন চরিত্রের সাথে কথা বলতে পারে। এর বিষয়বস্তু নিজের জীবনে ঘটে যাওয়া দূর অতীতের বা নিকট অতীতের কোন ঘটনা বা সম্পূর্ণ কাল্পনিক কোন ঘটনা হতে পারে। ঘুমের মধ্যে কথা বলার ধরন রোগীর স্বাভাবিক অবস্থায় কথা বলার ধরন থেকে সম্পূর্ণ আলাদা হয়। রোগী ফিসফিস বা বিড়বিড় করতে পারেন। আবার খুব জোরেও কথা বলতে পারেন। ঘুমের মধ্যে কথা বলাসহ হাসে, গুণাগুণ করে বা চিত্কার ও করে থাকে, অনেক সময় এমনও মনে হতে পারে যে অন্যের সঙ্গে কথা বলছে। যে কোন মানুষ এই সমস্যাটিতে ভুগতে পারে তবে পুরুষ ও শিশুরাই বেশি ভুগে থাকে।

স্লিপ টকিংয়ের কারণ:বিভিন্ন কারণে এই সমস্যা দেখা যায়। সাধারণভাবে ঘুমের মধ্যে কথা বলার কারণগুলো হল- অত্যধিক মানসিক চাপ, হতাশা, জ্বর, পরিমিত পরিমাণ ঘুমের অভাব, অতিরিক্ত মদ্যপান ইত্যাদি। অনেকেই বংশগতভাবে এই সমস্যায় ভুগে থাকেন।

স্লিপ টকিংয়ের প্রতিকার: ঘুমের মধ্যে কথা বলা অভ্যাসের জন্য অনেক সময় বিড়ম্বনায়ও পড়তে হয়। এই সমস্যা কাটাতে কিছু বিষয় অনুসরণ করতে পারেন। যেমন-

১. ঘুমানোর একটা রুটিন তৈরি করুন৷ প্রতি দিন একই সময় ঘুমোতে যান৷ দিনে ঘুমোলে ৩০ মিনিটের বেশি ঘুমোবেন না৷ এতে রাতের ঘুম ভাল হবে৷ ঘুম ভাল হলে এই সব সমস্যা হবে না৷  

২. যদি আপনি অ্যালকোহলিক হন, তাহলে সেটা কমাতে হবে। বিশেষ করে ঘুমের আগে অ্যালকোহল পান করবেন না। এতে ঘুমের সমস্যা হবে৷ ঘুমের মধ্যে কথা বলার প্রবণতা বাড়বে৷  

৩. ঘুমের মধ্যে কথা বলার অন্যতম প্রধান কারণ মানসিক চাপ এবং ঘুম ভাল না হওয়া। তাই এই সমস্যা কাটাতে হলে সবচেয়ে আগে মানসিক চাপ কাটানো জরুরি৷ এজন্য মেডিটেশন করুন, নিয়মিত ব্যায়াম করুন। 

যদি সমস্যা গুরুতর হয়, তাহলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন৷ অনেক সময় স্লিপ অ্যাপনিয়ার মতো গুরুতর সমস্যার কারণেও এমনটা হতে পারে ৷

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

সম্পাদক : মোতাহার হোসেন প্রিন্স, প্রকাশক : মেহেদী হাসান রাসেল

ফ্লাটঃ ৪বি, লেভেলঃ ৪, বাড়ীঃ ১৫, রোডঃ ১৪, সেক্টরঃ ১৩, উত্তরা, ঢাকা ১২৩০

ফোন: 01675132946 

E-mail: dailysongjog@gmail.com

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত